মুদ্রণ

বিডিনিউজডেস্ক.কম| তারিখঃ ১৭.০৩.২০১৯

 

বায়ুদূষণ যেন নগরজীবনের একটি স্থায়ী সমস্যার নাম। চলতি বছরের এক প্রতিবেদন অনুযায়ী, বিশ্বের দূষিত বায়ুর শহরগুলোর মধ্যে

দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে ঢাকা। প্রতিবেদনে বলা হয়, এ শহরে বায়ু দূষণের মাত্রা চীনের জনবহুল শহর বেইজিংয়ের চেয়েও বেশি। বাসা থেকে বেরোলেই এ বায়ুদূষণ হাড়ে হাড়ে উপলব্ধি করতে পারেন রাজধানীবাসী। ধুলায় আচ্ছন্ন শহরটি যেন কুয়াশা মতো ঢেকে থাকে সারাক্ষণ। বায়ুদূষণে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে শিশুরা, বয়স্করা।

অস্বাস্থ্যকর খাবার থেকে ওবেসিটি, রাতজাগা থেকে মানসিক উদ্বেগ- এমন অনেক কারণকেই ডায়াবেটিসের জন্য দায়ী করে থাকেন চিকিৎ‌সকরা। কিন্তু কখনোই দূষণের কথা বলেন না। বলবেনই বা কেন! এর আগে কোথাও, কোনো জার্নালে বা গবেষণায় ডায়াবেটিসের জন্য ‘দূষণ’কে কাঠগড়ায় তোলা হয়নি। ফলে দূষণের সঙ্গে রক্তশর্করার সম্পর্ক অজানই ছিল এতকাল।

সম্প্রতি চীনা গবেষকরা দাবি করেন, ডায়াবেটিসের সঙ্গে দূষণের সম্পর্ক রয়েছে। ৮৮ হাজার চীনা যুবক-যুবতীর উপর গবেষণা চালিয়ে তারা এই সিদ্ধান্তে আসেন। তারা বলছেন, বায়ুতে দূষণসৃষ্টিকারী পিএম২.৫- এর মাত্রা যত বাড়বে, ডায়াবেটিসের ঝুঁকিও সেই হারে বাড়বে। অর্থাৎ‌ বায়ুদূষণ যেখানে যত বেশি, সেখানে ডায়াবেটিসে আক্রান্তের সংখ্যাও বেশি।

২০০৪ থেকে ২০১৫ পর্যন্ত এই সমীক্ষা চালানো হয়েছে বলে জানিয়েছে গবেষক দলটি। বেজিংয়ের ফুয়াই হাসপাতালের বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে এই গবেষণায় শামিল হয়েছিলেন আমেরিকার এমোরি ইউনিভার্সিটির একটি দলও। গবেষকরা আশাবাদী, তাদের এই গবেষণা ভবিষ্যতে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণের রূপরেখা তৈরিতে সাহায্য করবে।