Nabodhara Real Estate Ltd.

Khan Air Travels

Bangadesh Manobadhikar Foundation

বিডিনিউজডেস্ক.কম

তারিখঃ ০৫.০৫.২০১৫

দীর্ঘ জীবন লাভে কে না আগ্রহী। কিন্তু অনেক ক্ষেত্রে কাড়ি কাড়ি টাকা খরচ, পরিমিত আহার, জিম, এক্সারসাইজ এতো সবের পরও মেলে না দীর্ঘ জীবন।

তবে বিজ্ঞানীরা সম্পূর্ণ বিনা খরচায় দীর্ঘায়ু লাভের এক অভূতপূর্ব তথ্য দিয়েছেন। আর তা হচ্ছে আপনি যদি পরিবার-পরিজন, আত্মীয়-স্বজন, বন্ধু-বান্ধব নিয়ে একটা সুখের রাজত্ব কায়েম করতে পারেন তবে আপনারা আল্ল¬াহর অশেষ রহমতে লাভ করতে পারেন দীর্ঘ জীবন। ব্যক্তি ও পারিবারিক সুখই আপনাকে এনে দিতে পারে দীর্ঘায়ু লাভের সেই কাঙ্ক্ষিত সোনার কাঠি। বিজ্ঞানীরা আরও বলেছেন, যারা সুখী, সৃষ্টিশীল এবং অন্যের অনিষ্ট কামনা করেন না তাদের অকাল মৃত্যুর হার শতকরা ৩৫ ভাগ হরাস পেতে পারে। আর এই আশাব্যঞ্জক তথ্য দিয়েছেন ইউনিভার্সিটি কলেজ লন্ডন এর স্বাস্থ্য মনোবিজ্ঞানী এন্ড্রু স্টেপটো। দীর্ঘ ৫ বছর মেয়াদী গবেষণায় ৫২ থেকে ৫৭ বছর পর্যন্ত বয়সী ৩ হাজার ৮ শ' লোকের ওপর জরিপ চালিয়ে এ তথ্য প্রকাশ করা হয়। এই দীর্ঘ মেয়াদী ব্রিটিশ এজিং স্ট্যাডিতে গবেষণায় অন্তর্ভুক্ত নাগরিকদের সুখ ও উদ্বেগ সংক্রান্ত নানা প্রশ্ন স্থান পায়। বিজ্ঞানীরা দেখতে পান যারা সুখী তাদের মৃত্যু ঝুঁকি শতকরা ৩৫ ভাগ কম যারা অপেক্ষাকৃত কম সুখী বা উদ্বেগের মধ্যে দিয়ে চলতে হয় তাদের অপেক্ষা। এখানে বিশেষজ্ঞগণ পরিবারের সুখকেই বেশি প্রাধান্য দিয়েছেন। মনোবিজ্ঞানী স্টেপটো আরও মনে করেন তার এই নতুন গবেষণা মধ্যবয়স্ক লোকদের সুখী জীবনযাপনে উদ্বুদ্ধ করবে এবং তারা পরিবার ও কর্মক্ষেত্রে শান্তিময় থাকতে চেষ্টা করবেন। তিনি আরও উল্লে¬খ করেন অনেকে হয়তবা প্রশ্ন করতে পারেন সুখের সঙ্গে দীর্ঘ জীবনের আবার কি সম্পর্ক থাকতে পারে। এ প্রসঙ্গে তিনি উল্লেখ করেন যারা কম দুশ্চিন্তাগ্রস্ত থাকেন এবং সদা সুখী থাকতে চান তাদের ক্ষতিকর স্ট্রেস হরমোন কম নিঃসৃত হয়। তিনি উল্লে¬খ করেন এমনটি ভাববার যথেষ্ট যুক্তি রয়েছে যে, সুখী জীবনের সঙ্গে দীর্ঘ জীবনের কোন বায়োলজিক্যাল প্রসেসের সম্পর্ক রয়েছে। তিনি আরও উল্লে¬খ করেন মানুষ যে মুহূর্তে অধিক সুখী থাকে এবং সুন্দর অনুভূতিগুলো জাগ্রত হয় তখন কর্টিসোল নামের স্ট্রেস হরমোন কম নিঃসৃত হয়। আর এই হরমোন নিয়ন্ত্রণে রাখা গেলে দীর্ঘায়ু লাভ করা যায়। এটাই গবেষণার প্রধান উপাত্ত। শুধু পারিবারিক সুখই নয়, আপনি যদি অফিসের বস হন আর যদি সারাক্ষণ অধীনস্তদের সঙ্গে তিক্ততাপূর্ণ আচরণ করেন তাহলেও আপনার স্ট্রেস হরমোন বেড়ে যেতে পারে যা দীর্ঘায়ু লাভের অন্তরায় হতে পারে। আপনিও স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে পড়তে পারেন। তাই শুধু পরিবারের সুখ নয়, সমাজের সর্বক্ষেত্রে সুখী হতে চেষ্টা করুন।