মুদ্রণ

গণতন্ত্রের স্বার্থে যে কারো সঙ্গে আলোচনা

বিডিনিউজডেস্ক.কম

তারিখঃ ৩০.০৫.২০১৫

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, দেশের বৃহত্তর স্বার্থ রক্ষায় মুক্তিযুদ্ধের মূল্যবোধকে অক্ষুণ্ন রাখতে এবং গণতন্ত্রের স্বার্থে যে কারো সঙ্গেই আলোচনা হতে পারে।

শনিবার বিকালে রাজধানী ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ ছাত্রলীগের বার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

সেতুমন্ত্রী বলেন, আমরা যখন ভারতের সঙ্গে কূটনৈতিক তৎপরতা চালাচ্ছিলাম, বিএনপি-জামায়াত তখন পেট্রোলবোমায় মানুষ হত্যা করছিল।

তিনি বলেন, বিএনপি পোট্রোলবোমা বন্ধ করতে রাজি হয়নি। তাহলে আমরা কার সঙ্গে আলোচনায় বসব। এমন গণতন্ত্র ধ্বংসকারীদের সঙ্গে কি আলোচনায় বসা যায়?

মন্ত্রী বলেন, ঢাকার দুই মেয়র, চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র এবং সড়ক পরিবহণ ও সেতু মন্ত্রণালয় সিদ্ধান্ত নিয়েছে সব অপ্রয়োজনীয় রাজনৈতিক বিলবোর্ড অপসারণ করা হবে। পাশাপাশি সব সড়ক-মহাসড়কেও অপ্রয়োজনীয় বিলবোর্ড অপসারণে সব রাজনৈতিক দলেরও সহযোগিতা কামনা করেন তিনি।

ওবায়দুল কাদের বলেন, বিশৃংখল বিলবোর্ডের কারণে আমি আমার সুন্দর আকাশ দেখতে পারি না। মেঘের খেলা দেখতে পারি না।

তিনি বলেন, পদ্মা সেতু নির্মাণ হলে দেশের যোগাযোগ ব্যবস্থার আমূল পরিবর্তন হবে। দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের দারিদ্র্য জাদুঘরে চলে যাবে।

তিনি আরো বলেন, ছাত্রলীগ ২০০১ সালে ১৭ মে পল্টন ময়দানে যা উপলব্ধি করে শেখ হাসিনাকে দেশরত্ম উপাধিতে ভূষিত করেছিল, সেই খেতাবকে জাতীয় নাগরিক কমিটি স্বীকৃতি দিয়েছে। এজন্য ভালো লেগেছে। সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে দেশরত্ন উপাধি দেওয়ার জন্য নাগরিক কমিটিকে ধন্যবাদ জানান তিনি।