Nabodhara Real Estate Ltd.

Khan Air Travels

Bangadesh Manobadhikar Foundation

বিডিনিউজডেস্ক.কম | তারিখঃ ২১.০১.২০১৯

দেশের লুব্রিক্যান্টস শিল্পের প্রযুক্তিগত অগ্রগতিকে আরেক ধাপ এগিয়ে নিতে পরিবেশবান্ধব দুটি আধুনিক প্রযুক্তি নিয়ে এসেছে লুব-রেফ (বাংলাদেশ) লিমিটেড।

গতকাল রাজধানীর একটি হোটেলে ‘বাংলাদেশের লুব্রিক্যান্ট ও বিদ্যুৎ খাতে সাশ্রয়ী ও পরিবেশবান্ধব প্রযুক্তি’ শীর্ষক এক সেমিনারে  কোম্পানির উদ্যোক্তারা এ কথা জানান। চট্টগ্রামে লুব-রেফ প্লান্টে ট্রান্সফর্মার অয়েল উৎপাদনের সুইডিশ প্রযুক্তি ‘নিনাস’ ও ইঞ্জিন অয়েল উৎপাদনে ফিনল্যান্ডের প্রযুক্তি ‘ন্যানো’ সংযোজনের নানা দিক তুলে ধরতে আয়োজিত সেমিনারে প্রধান অতিথি ছিলেন বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (বিডা) নির্বাহী চেয়ারম্যান কাজী এম আমিনুল ইসলাম। বিশেষ অতিথি ছিলেন সুইডিশ রাষ্ট্রদূত শার্লট স্কলাইটার, বুয়েটের কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক ইজাজ হোসাইন ও বিভিন্ন ইন্ডাস্ট্রির বিশেষজ্ঞ ব্যক্তিত্ব।

অনুষ্ঠানে বিডার নির্বাহী চেয়ারম্যান বলেন, ২০৪১ সালের মধ্যে বাংলাদেশ উন্নত অর্থনীতির দেশে পরিণত হবে। ক্রমেই উচ্চপ্রযুক্তির দিকে এগোচ্ছি আমরা। এ অগ্রগতিতে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় পরিবেশবান্ধব প্রযুক্তি। আশা করছি, লুব-রেফ দেশে যে প্রযুক্তি নিয়ে এসেছে, তা অর্থনৈতিক উন্নয়নের পাশাপাশি পরিবেশ রক্ষায়ও সহায়ক হবে।

দেশে বিদ্যুৎ উৎপাদন ২০ হাজার মেগাওয়াট ছাড়িয়েছে উল্লেখ করে আমিনুল ইসলাম আরো বলেন, বিদ্যুৎ প্লান্টগুলোতেও লুব অয়েলের চাহিদা বাড়ছে। অর্থনীতির বিকাশের সঙ্গে সঙ্গে যেসব পণ্যের চাহিদা অনেক বাড়ে, লুব অয়েল তার একটি।

সেমিনারে সভাপতির বক্তব্যে দেশে যানবাহন ও শিল্প-কারখানায় ইঞ্জিনগুলোতেও লুব অয়েলের চাহিদা দ্রুত বাড়ছে উল্লেখ করে লুব-রেফ বাংলাদেশের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ ইউসুফ বলেন, ক্রমবর্ধমান চাহিদার পরিপ্রেক্ষিতে পরিবেশবান্ধব ও সাশ্রয়ী এ প্রযুক্তি দুটি সংযোজন করেছি আমরা। নিনাস প্রযুক্তির ট্রান্সফরমার অয়েল খুব কম তাপ উৎপাদন করে যন্ত্রাংশের পাশাপাশি পরিবেশও সুরক্ষা করে। ন্যানো প্রযুক্তির ইঞ্জিন অয়েলগুলো ব্যবহারে যন্ত্রাংশ দীর্ঘস্থায়ী হবে। সর্বোপরি জ্বালানি খরচ ৫ শতাংশ কমাবে, যা অর্থ সাশ্রয়ের পাশাপাশি পরিবেশের জন্যও ইতিবাচক। নতুন প্রযুক্তির প্লান্টের কর্মদক্ষতা ৫০ বছর পর্যন্ত অটুট থাকবে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

পেট্রোকেমিক্যাল ও লুবিক্যান্ট শিল্পে  কোম্পানিটির প্রায় চার দশকের অভিজ্ঞতা। স্থানীয় প্লান্টে বিশ্বমানের লুব্রিক্যান্ট প্রস্তুত করে বাজারের আস্থা অর্জন করেছে লুব-রেফের ব্র্যান্ড বিএনও। চট্টগ্রামে তাদের টেস্টিং ল্যাবরেটরিটিও বাংলাদেশের সর্বাধুনিক একটি স্থাপনা।

অটোমোটিভ, সিমেন্ট, ইস্পাত, পেট্রোকেমিক্যাল, ফার্মা, কৃষি, প্রকৌশল কোম্পানিসহ বিভিন্ন ইন্ডাস্ট্রির জন্য সমন্বিত পণ্যসম্ভার নিয়ে আসছে কোম্পানিটি। পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হওয়ার জন্য এরই মধ্যে প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের রোড শো সম্পন্ন করেছে তারা। সেখানে যোগ্য প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের সামনে কোম্পানির ব্যবসা ও আর্থিক অবস্থার নানা দিক তুলে ধরা হয়।