মুদ্রণ

বিডিনিউজডেস্ক.কম | তারিখঃ ১১.০২.২০১৯

 

ডেল্টা ব্র্যাক হাউজিং ফিন্যান্স করপোরেশন লিমিটেডের (ডিবিএইচ) পর্ষদ ২০১৮ সালের ৩১ ডিসেম্বর সমাপ্ত হিসাব বছরের জন্য ২৫ শতাংশ

নগদ ও ১০ শতাংশ স্টক লভ্যাংশ সুপারিশ করেছে। সমাপ্ত হিসাব বছরে আবাসন ঋণদাতা কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৮ টাকা ৬০ পয়সা, আগের বছরের চেয়ে যা ১০ দশমিক ৪ শতাংশ বেশি। ৩১ ডিসেম্বর ব্যাংক-বহির্ভূত আর্থিক খাতে তালিকাভুক্ত এ কোম্পানির শেয়ারপ্রতি নিট সম্পদমূল্য দাঁড়ায় (এনএভিপিএস) ৪১ টাকা ৩৬ পয়সা।

নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন, লভ্যাংশ ও অন্যান্য এজেন্ডা অনুমোদনে ৩১ মার্চ সকাল সাড়ে ১০টায় রাজধানীর গুলশানে অবস্থিত ডেল্টা লাইফ টাওয়ারে কনফারেন্স হলে শেয়ারহোল্ডারদের বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম) আয়োজন করবে ডিবিএইচ। রেকর্ড ডেট নির্ধারণ করা হয়েছে ৪ মার্চ।

২০১৮ হিসাব বছরের প্রথম তিন প্রান্তিকে ডিবিএইচের ইপিএস আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় মাত্র ৬ পয়সা বেড়ে দাঁড়ায় ৬ টাকা ৬৫ পয়সা। মূলত চতুর্থ প্রান্তিকের ইপিএসে উচ্চ প্রবৃদ্ধির সুবাদেই বার্ষিক প্রতিবেদনের মুনাফায় দুই অংকের প্রবৃদ্ধি দেখাতে সক্ষম হয় প্রতিষ্ঠানটি। ২০১৮ সালের অক্টোবর-ডিসেম্বর সময়ে তাদের ইপিএস এক বছর আগের তুলনায় ৬২ শতাংশ বেড়ে হয়েছে ১ টাকা ৯৫ পয়সা।

একটি ইকুইটি রিসার্চ টিমের হালনাগাদ প্রতিবেদনে দেখা যায়, গত ৩১ ডিসেম্বর ডিবিএইচের অনাদায়ী ঋণের (এনপিএল) হার দাঁড়িয়েছে শূন্য দশমিক ৪৬ শতাংশ, ২০১৭ সাল শেষে যা ছিল শূন্য দশমিক ৩৬ শতাংশ। এনপিএলের এ হার ইন্ডাস্ট্রির গড়ের চেয়ে অনেক কম হলেও কোম্পানির ছয় বছরের উপাত্তগুলোর মধ্যে সর্বোচ্চ। এ বছর ডিবিএইচের রিটার্ন অন ইকুইটি দাঁড়িয়েছে ২০ দশমিক ৮ শতাংশ, যা ২০১৩ সালের পর সর্বনিম্ন। অবশ্য এনবিএফআই কোম্পানিটির মূলধন পর্যাপ্ততার অনুপাতও গত ছয় বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ ১৭ দশমিক ৭ শতাংশে উন্নীত হয়েছে।

গত ছয় বছরে দ্বিতীয়বারের মতো স্টক লভ্যাংশ সুপারিশ করল ডিবিএইচের পর্ষদ। এ বছর তাদের মুনাফার বিপরীতে নগদ লভ্যাংশের হার (ডিভিডেন্ড পেআউট রেশিও) দাঁড়াবে ২৯ দশমিক ১ শতাংশ, যেটি ২০১৩ সালের পর সর্বনিম্ন। ২০১৭ সালের ৩১ ডিসেম্বর সমাপ্ত হিসাব বছরের জন্য ৩০ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দিয়েছিল ডিবিএইচ। বার্ষিক ইপিএস ছিল ৭ টাকা ৭৯ পয়সা।

এদিকে মুনাফা প্রবৃদ্ধি ও ডিভিডেন্ড পেআউট রেশিও কমলেও স্টক এক্সচেঞ্জে গতকাল ডিবিএইচ শেয়ারের চাহিদা কমেনি। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে গতকাল ডিবিএইচ শেয়ারের সর্বশেষ দর ১ দশমিক ৮ শতাংশ বেড়ে দাঁড়ায় ১৪১ টাকা ৯০ পয়সা। গত এক বছরে শেয়ারটির সর্বনিম্ন দর ছিল ১২৬ টাকা ও সর্বোচ্চ দর ১৬২ টাকা।

সর্বশেষ রেটিং অনুযায়ী ডিবিএইচের ঋণমান দীর্ঘমেয়াদে ‘ট্রিপল এ’ এবং স্বল্পমেয়াদে ‘এসটি-ওয়ান’। ২০১৭ হিসাব বছরের নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন ও অন্যান্য তথ্যের ভিত্তিতে এ মূল্যায়ন করেছে ইমার্জিং ক্রেডিট রেটিং লিমিটেড (ইসিআরএল)। এক দশকেরও বেশি সময় ধরে সর্বোচ্চ এ ঋণমান ধরে রেখেছে ডিবিএইচ।

২০০৮ সালে পুঁজিবাজারে আসা ডিবিএইচের অনুমোদিত মূলধন ২০০ কোটি ও পরিশোধিত মূলধন ১২১ কোটি ৮৫ লাখ ২০ হাজার টাকা। রিজার্ভ ৩০৮ কোটি ৪১ লাখ টাকা। কোম্পানির মোট শেয়ার সংখ্যা ১২ কোটি ১৮ লাখ ৫১ হাজার ৮৪৩। এর মধ্যে ৫১ দশমিক ৩২ শতাংশ এর উদ্যোক্তা-পরিচালকদের কাছে, বিদেশী ৪৩ দশমিক ২১, প্রতিষ্ঠান ২ দশমিক ৩১ ও বাকি ৩ দশমিক ১৬ শতাংশ শেয়ার রয়েছে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের হাতে।