মুদ্রণ

বিডিনিউজডেস্ক.কম   
তারিখ:২৭.০৪.২০১৫   

নীলফামারীর কিশোরগঞ্জে আবারো শুরু হয়েছে জুয়ার আসর । দিনে রাতে সমান তালে চলা জুয়া বন্ধে উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে নেই কোন জোড়ালো ভূমিকা ।

উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, গাড়াগ্রাম ইউনিয়নের নতুন টেপার হাটে,গাড়াগ্রাম তেলীপাড়া গ্রামের জাকারুল পাগলার ঘরের ভিতরের আস্তানায় এবং পার্শ্ববর্তী শুকনো পুকুরের মাঝখানে প্রতিদিন বিকালে জুয়ার আসর বসছে ।
এদিকে রনচন্ডি ইউনিয়নে অাবুলের বাজার এলাকা ও কিশোরগঞ্জ-জলঢাকা উপজেলার সীমান্তবর্তী কৈমারী বাজারে কাওয়ালী গানের নামে রনচন্ডি ইউপি’র ওয়ার্ড সদস্য আলমগীর হোসেনের নেতৃত্বে চলে জমজমাট জুয়ার আসর । এই দুটি আসরে প্রতিদিন ২-৩ লক্ষ টাকা হাতবদল হয় । শুক্রবার টাকা হাতবদলের পরিমাণ আরো বেড়ে যায় ।
আর এসব বন্ধে উপজেলা প্রশাসনের কোন জোড়ালো ভুমিকা না থাকায় জুয়ারীরা নির্বিঘ্নে জুয়া খেলা চালাচ্ছে । ফলে এলাকায় ছিচকে চুরিসহ নানাবিধ অপকর্ম সংঘটিত হচ্ছে ।
এলাকাবাসীর অভিযোগ জুয়া বন্ধে উল্লেখিত ইউনিয়ন পরিষদ’র চেয়ারম্যানরা কোন ভূমিকা রাখছেন না । অপর দিকে একজন জনপ্রতিনিধি (ইউপি সদস্য) যেখানে নিজেই জুয়ায় নেতৃত্ব দেয় তখন সেখানকার সমাজ কোন দিকে যাবে তা বলার অপেক্ষা রাখেনা ।
এ বিষয়ে কিশোরগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মোস্তাফিজার রহমানের সাথে কথা হলে তিনি জানান, জুয়ারীদের ব্যাপারে কোন আপোষ নেই । রনচন্ডি ইউনিয়ন পরিষদের ওয়ার্ড সদস্য আলমগীর হোসেনকে কয়েকবার হুশিয়ার করা হলেও তিনি জুয়া খেলা চালিয়ে যাচ্ছেন এবং উপজেলা নির্বাহী অফিসার সিদ্দিকুর রহমান দেশের বাইরে থাকায় জুয়ারীদের ব্যাপারে কঠোর কোন পদক্ষেপ নেয়া সম্ভব হচ্ছে না ।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার দেশে ফিরলে জুয়ারীদের গ্রেপতার করে আইনি ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে ।