মুদ্রণ

বিডিনিউজডেস্ক.কম   
তারিখঃ ১০.০৬.২০১৫   

নীলফামারীর সদর উপজেলার রামনগর ইউনিয়নের চাদেরহাট দেওয়ানী পাড়ার এক হাসকিং মিল মালিক মাইকিং করে ১ মণ ধান ১টাকা দরে ভেঙ্গেছে । সরকারি নিয়ম ও মিল মালিক সমিতির নির্দেশ উপেক্ষা করে এই প্রচারণা চালায় বিপাকে পড়েছেন জেলার সাড়ে চারশ’ মিল-চাতাল মালিক ।

জানা গেছে, নীলফামারী সদর উপজেলার রামনগর ইউনিয়নের চাদেরহাট দেওয়ানী পাড়ার এলাকার মৃত জালাল পন্ডিতের ছেলে নজরুল ইসলাম চাদেরহাট বাজারে নতুন একটি হাসকিং মিলের উদ্বোধন করেন। গতকাল মঙ্গলবার সকাল থেকে এলাকায় মাইকিং করে ১টাকা মণ দরে ধান ভাঙ্গার ঘোষণা দেন। এই ঘোষণার পর থেকে তার মিলে অসংখ্য মানুষ ধান ভাঙ্গার জন্য ভিড় জমায়। এতে বাজারে থাকা আরো ৬টি হাসকিং মিলে ওই ঘোষণার বিরুপ প্রভাব পড়ে।

স্থানীয় পাটোয়ারী হাসকিং মিলের মালিক আব্দুস সোবহান জানান, গত ১৫ বছর ধরে তারা এখানে হাসকিং মিলের ব্যবসা করে আসছেন। ধান ভাঙতে পিডিপির প্রতি ইউনিটে খরচ হয় সাড়ে ১০টাকা। এক মণ ধান ভাঙতে বিদ্যুৎ খরচ হয় এক ইউনিট। কিন্তু এই নতুন মিল মালিক কিভাবে পোষাবেন তা কারোরই বোধগম্য নয়।

অপর এক মিল মালিক অভিযোগ করেছেন, বিদ্যুৎ বিভাগের সাথে যোগসূত্র করে নজরুল ইসলাম তার ব্যবসা চালিয়ে নিচ্ছেন।

জেলা হাসকিং মিল-চাতাল মালিক সমিতির সভাপতি রকিবুল হাসান অভিযোগ করেছেন, পিডিপির কর্মকর্তাদের সহযোগিতায় নজরুল ইমলাম ১ টাকা দরে ধান ভাঙছেন। এই অবস্থা চলতে থাকলে জেলার সাড়ে ৪শ’ মিল মালিককে ব্যবসা বন্ধ করতে হবে। এব্যাপারে নীলফামারী আবাসীক বিদ্যুৎ অফিসের সহকারী প্রকৌশলী গোলাম মীর্জার সাথে কথা হলে তিনি এর কোন সদুত্তোর দিতে পারেননি।